ঢাকা, বাংলাদেশ বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫:০৯ অপরাহ্ন
ব্রিটিশ সাংবাদিক সায়মন ড্রিং’র মৃত্যু, প্রধানমন্ত্রীর শোক
কলকাতা টিভি ডেস্ক:
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২০ জুলাই, ২০২১, ০৯:৩৬:২৬ পিএম
  • / ৫২ বার খবরটি পড়া হয়েছে

না ফেরার দেশে চলে গেলেন বিখ্যাত ব্রিটিশ সাংবাদিক, বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু সায়মন ড্রিং। তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। গত শুক্রবার রোমানিয়ার একটি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের সময় সায়মন ড্রিংয়ের মৃত্যু হয়।

তিনিই একমাত্র সাংবাদিক, যিনি ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানের ভয়াবহতা এবং নৃশংসতা বিশ্ববাসীকে জানিয়েছিলেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর জঘন্য ও নৃশংসতার বিবরণ তুলে ধরেছিলেন বিশ্ব দরবারে।

সায়মন ড্রিং ছিলেন অকুতোভয় এবং মেধাবী একজন সাংবাদিক। তিনি বিবিসি, রয়টার্স, টেলিগ্রাফ ও ওয়াশিংটন পোস্টে কাজ করেছেন। সাফল্যর স্বীকৃতি হিসেবে অনেকগুলো আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পেয়েছেন।

১৯৪৫ সালের ১১ জানুয়ারি ইংল্যান্ডের নরফোকে জন্ম নেওয়া সায়মন ড্রিং সাংবাদিকতা শুরু করেন ১৮ বছর বয়স থেকে। দেখেছেন ২২টি যুদ্ধ, অভ্যুত্থান ও বিপ্লব। যুদ্ধক্ষেত্রের সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে আহতও হয়েছেন একাধিকবার।

তার স্ত্রী ফিয়োনা ম্যাকফারসন একজন আইনজীবী এবং রোমানিয়াভিত্তিক একটি ব্রিটিশ দাতব্য সংস্থার নির্বাহী পরিচালক। ইভা ও ইনডিয়া তাদের যমজ মেয়ে। প্রথম স্ত্রীর ঘরে তানিয়া নামে আরও একটি মেয়ে রেখে গেছেন সায়মন ড্রিং

১৯৭১ সালের ৬ মার্চ ঢাকা আসেন সায়মন ড্রিং। তবে ১৯৬৮ সালেও তার ঢাকায় আসার আরেকটি খবর রয়েছে। তিনি সে সময় কেন এসেছিলেন, তা অজানা। দ্বিতীয় দফায় ঢাকায় আসার পরদিনই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ শোনার সুযোগ হয় তার। মঞ্চের খুব কাছে দাঁড়িয়ে পুরো ভাষণ শুনেছিলেন তিনি। এরপর ঢাকায় বিভিন্ন কাজ করছিলেন। এভাবেই পার হয়ে যায় দুই সপ্তাহ। এসে যায় ২৫ মার্চ।

তিনি জানতে পারেন পশ্চিম পাকিস্তানের ইয়াহিয়া খান কোনো সমঝোতা ছাড়াই ঢাকা ত্যাগ করছেন। আগের অভিজ্ঞতা থেকে সায়মন ধারণা করেন, ঢাকায় ভয়ঙ্কর কিছু হতে যাচ্ছে। এরইমধ্যে বিদেশি সব সাংবাদিককে একসঙ্গে করে রাখা হয় ইন্টারকন্টিনেন্টালে। তাদের গার্ড দেয় পাকিস্তানের মিলিটারি বাহিনী।

তার সন্দেহ আরও বেড়ে যায়। উপস্থিত সব সাংবাদিক জানতে পারেন, ঢাকায় গণহত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ শুরু করেছে পাকিস্তানের সৈন্যরা। রাতেই পাকিস্তানের গোয়েন্দা বিভাগের মেজর সালেক সিদ্দিকী নিরাপত্তার অজুহাতে সব বিদেশি সাংবাদিককে ঢাকা ত্যাগের নির্দেশ দেন। কিন্তু নিজ ইচ্ছায় বাংলাদেশে থেকে যান সায়মন।

এদিকে, সাংবাদিক সায়মন ড্রিংয়ের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এক শোকবার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের কাল রাত্রিতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ভয়াবহ গণহত্যার তথ্য ও প্রতিবেদন তিনি বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরেন।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জনমত সৃষ্টিতে তিনি ভূমিকা রেখেছেন এবং স্বাধীন বাংলাদেশের গণমাধ্যমের বিকাশেও তার অবদান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই মুহূর্তে

প্রদীপের পক্ষে আদালতে জেরা করতে আইনজীবীর অনীহা
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
এবারে চাঁদে ১০ একর জমি কেনার দাবি গোপালগঞ্জের দম্পতির!
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
কুতুবদিয়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ২জন,অশ্রুসিক্ত শিশুসন্তানরা
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
তালেবানদের অংশগ্রহণ চায় পাকিস্তান, ভারতসহ কয়েকটি সদস্য দেশ এই প্রস্তাবে আপত্তি কারণে সার্ক বৈঠক বাতিল
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
পাকিস্তানে মসজিদ থেকে পানি নিয়ে হামলার মুখে হিন্দু পরিবার
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
বিশ্বের সবচেয়ে দামি আমের ফলন হচ্ছে বাংলাদেশে
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
ফুসফুসের সফল প্রতিস্থাপনে নজির গড়ল কলকাতার হাসপাতাল
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
সাফের জন্য ২৬ সদস্যের দল ঘোষণা, চমক এলিটা
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
প্রতিশ্রুতিশীল খাতে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
অন্যদেশে পাচার হচ্ছে আফগান সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টার ও সাঁজোয়াযান
বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২১
খবরের আর্কাইভ